তথ্য কমিশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২nd নভেম্বর ২০১৬

প্রধান তথ্য কমিশনার মহোদয়

ড. মো: গোলাম রহমান

 

ড. মো: গোলাম রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক। সম্প্রতি অধ্যাপক রহমান প্রধান তথ্য কমিশনার হিসেবে কাজে যোগদান করেছেন। তিনি রাষ্ট্রীয় সংবাদসংস্থা বাসস এর চেয়ারম্যান ছিলেন। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে একজন খ্যাতিমান গণমাধ্যম গবেষক ও যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ। প্রায় চার দশকের শিক্ষকতা জীবনে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারপারসন (১৯৯০-৯৩ ও ২০০৪-২০০৫) ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম প্রাধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি পাপুয়া নিউগিনি ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি’র ভাষা ও যোগাযোগ অধ্যয়ন বিভাগের প্রধান (২০০৮-২০১০) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন।

অধ্যাপক রহমান আমেরিকার ওকলাহোমা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সিনিয়র ফুলব্রাইট স্কলার  হিসেবে পোষ্ট ডক্টরাল গবেষণা সম্পন্ন করেন। তিনি ভারতের মহীশুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। উল্লেখ্য এটিই ভারতের কোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিষয়ে প্রথম  পিএইচডি ডিগ্রি। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্বনামধন্য জার্নালে তার প্রায় ৬০টি গবেষণা নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে এবং তার রচনা ও সম্পাদনায় ১২টি গ্রন্থ ও ম্যানুয়াল দেশ ও বিদেশ থেকে প্রকাশিত হয়েছে। অধ্যাপনার পাশাপাশি তিনি দেশের জ্ঞানজগত, বুদ্ধিবৃত্তিক ও সাংস্কৃতিক পরিম-লের  উৎকর্ষ সাধনেও অবদান রেখে চলেছেন। বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের টকশো ছাড়াও জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের সেমিনার, কনফারেন্স ও ডায়ালগে অংশগ্রহণ করে আসছেন। বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের তিনি একজন গৌরবান্বিত মুক্তিযোদ্ধা ।

এছাড়া জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা প্রণয়ন কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। গণমাধ্যম ও উন্নয়ন যোগাযোগে অসামান্য অবদানের জন্য ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন ফর ম্যাস কমিউনিকেশন রিসার্চ (আইএএমসিআর) ১৯৯০ সালে “হু ইজ হু ইন ম্যাস কমিউনিকেশন” বই এর কভারে ড. রহমানের ছবি ছেপে সম্মানিত করেছে। ২০০১ সালে ইউনিভার্সেল পিস ফেডারেশন ড. রহমানকে “শান্তির দূত” (Ambassador for Peace) সম্মাননা প্রদান করে। তিনি বাংলাদেশ সেন্সর বোর্ড আপীল কমিটির সদস্য।

ড. রহমান শিক্ষা ও পেশাগত প্রয়োজনে ৩০টিরও বেশি দেশে ভ্রমণ করেছেন। তিনি এশিয়ান মিডিয়া, ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন (AMIC)  এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি। ড. রহমান United Nations International Drug Control Program এর গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞ হিসেবেও কাজ করেছেন। তিনি কমনওয়েল্থ অ্যাসোসিয়েশন ফর এডুকেটরস ইন জার্নালিজম অ্যান্ড কমিউনিকেশন  (CAEJAC) এর সহ-সভাপতি ছিলেন। ড. রহমান এক ছেলে ও দুই মেয়ের জনক।

 

 


Share with :